July 3, 2020

করোনার সংক্রমণের হার দ্রুত কমানো এবং সকলের চিকিৎসা প্রাপ্তিতে করনীয়।

ডাঃ মোঃ হাসান ইমাম 

সরকার প্রথম দিকে কিছু ভালো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করায়  মার্চ ও এপ্রিলে সংক্রমণের হার অনেকটা  কম ছিলো। পরবর্তীতে গার্মেন্টস, দোকান ও পরিবহন মালিকদের অনৈতিক চাপের কারনে দেশ আজ সংকটের মধ্যে পরে গেছে। বর্তমানে সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার দুটাই বৃদ্ধি পাচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পুনরায় কঠোর লকডাউন দেওয়া  সহ কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়ায় সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার আশাকরি কমে আসবে।আমি গত এপ্রিল ও মে মাসে বিভিন্ন প্রত্রিকার মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট  অনুরোধ  করেছিলাম করোনার সংক্রমণ থেকে দেশকে রক্ষা করার জন্য নূন্যতম ১০ থেকে ১৫ দিনের কঠোর লকডাউন, টেষ্টের সংখ্যা বৃদ্ধি,সংক্রমিতদের দ্রুত আইসোলেশন, কন্ট্রাক্ট ট্রেসিং বের করা, সকল সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালকে করোনার চিকিৎসায় সম্পৃক্তকরন ও পর্যাপ্ত অক্সিজেনের ব্যবস্থা সহ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করলে দ্রুত পরিস্থিতির উন্নতি হবে।  সংক্রমণের হার দ্রুত কমানো এবং সকল আক্রান্ত ব্যক্তিদের সুচিকিৎসা প্রাপ্তি নিশ্চিত করার জন্য নিন্মের প্রস্তাবনাগুলি দ্রুত বাস্তবায়ন করা গেলে দেশকে মহামারীর হাত থেকে রক্ষা করা সম্ভব হবে।
১। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে জাতীয় দূর্যোগ কাউন্সিল দ্রুত গঠন করা।
২। সমগ্র বাংলাদেশকে জোন ভিত্তিক কঠোর ভাবে লকডাউন করা। গরীব ও নিম্ন আয়ের মানুষদের বিনামূল্যে এবং সচ্ছল ব্যক্তিদের অর্থের বিনিময়ে লকডাউন এলাকার  প্রতিটি পরিবারে খাদ্য  পৌছানোর ব্যবস্থা করতে হবে। ঘরে খাবার থাকলে কেউ বাহিরে বের হবে না, ফলে লকডাউন শতভাগ কার্যকর করা যাবে।
৩। বেসরকারি পর্যায়ে সক্ষমতা সম্পন্ন  সকল হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোকে করোনার চিকিৎসা প্রদান ও পরীক্ষা করার অনুমতি প্রদান করা এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহকে সরকারের পক্ষ থেকে কঠোর ভাবে নিয়ন্ত্রণ করা, যাতে করে কোন রোগী চিকিৎসা নিতে গিয়ে হয়রানি এবং আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়।
৪। বেশ কিছু বেসরকারি হাসপাতালকে করোনার চিকিৎসা প্রদান করার জন্য সরকার নির্দেশ প্রদান করলেও তারা এই দূর্যোগে সরকারের নির্দেশ পালন করছে না। এক্ষেত্রে সরকারি আইন অনুযায়ী এসকল বেসরকারি হাসপাতাল অধিগ্রহণ করে জনগণের সুচিকিৎসা  নিশ্চিত করে দূর্যোগ নিয়ন্ত্রণে আসার পরে বেসরকারি হাসপাতালগুলো স্ব স্ব মালিকের নিকট ফেরত প্রদান করা।
৫। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীরা শুধু মাত্র ফুসফুসের সমস্যার জন্য মৃত্যুবরন করেন না। গবেষণায় দেখা গেছে যে, আক্রান্ত রোগীরা হৃদরোগ, ব্রেন স্ট্রোক, কিডনি রোগ, রক্তনালির রোগ সহ বেশ কিছু জটিলতার কারনে মৃত্যুবরন করছে। মৃত্যু হার কমানোর জন্য  বিশেষজ্ঞদের মাধ্যমে নতুন চিকিৎসা গাইড লাইন প্রনয়ণ করে সকল হাসপাতালে একই গাইডলাইন অনুযায়ী চিকিৎসা প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহন করা।
৬। করোনার টেষ্টের জন্য আরো অধিক সংখ্যক সেন্টার/বুথ দ্রুত চালু করে ব্যপক জনগোষ্ঠীকে টেষ্টের আওতায় এনে সংক্রমিত ব্যক্তিদের দ্রুত পৃথক করা এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে করোনা পরীক্ষার ফী ও চিকিৎসার খরচ কমানোর নির্দেশ প্রদান করে জনগণকে আপদকালীন সময়ে সাহায্য করা।
৭। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় ওয়ার্ড ভিত্তিক মেডিকেল টীম গঠন করে মৃদু উপসর্গের রোগীদের বাসায় রেখে চিকিৎসা প্রদানের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে। ওয়ার্ড ভিত্তিক স্বাস্থ্যকর্মীদের দিয়ে পালস অক্সিমিটারের মাধ্যমে প্রতিটি পরিবারে নিয়মিত শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা পরিমাপ করা, তাপমাত্রা ও রক্তচাপ পরীক্ষা করা এবং এসকল চিকিৎসা সরঞ্জাম ব্যবহারের পূর্বে প্রতিবার জীবানুমুক্ত করে নেওয়া। বর্তমানে  উপসর্গ বিহীন করোনা রোগী অনেক পাওয়া যাচ্ছে এবং তাদের  ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, কিডনি রোগ ও হৃদরোগ সহ অন্যান্য রোগ থাকায়  বাসায় দ্রুত অসুস্থ হয়ে মৃত্যুবরন করছে। সরকারের পক্ষ থেকে ওয়ার্ড/এলাকা ভিত্তিক পালস অক্সিমিটার ও অক্সিজেন সিলিন্ডার সরবরাহ করা গেলে বহু সংখ্যক রোগীকে বাসায় রেখে চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে  সঠিক চিকিৎসা প্রদান করে মৃত্যুর হার অনেক কমিয়ে আনা সম্ভব, তাছাড়া যে হারে রোগী বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে সকল রোগীকে হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব হবে না। এ সকল  চিকিৎসা  সামগ্রী/সেবা স্বচ্ছল ব্যক্তিদের অর্থের বিনিময়ে এবং অস্বচ্ছল ব্যক্তিদের বিনামূল্যে প্রদান করা যেতে পারে এবং সংক্রমণ নিয়ন্ত্রনে আসার পরে সরকার অক্সিজেন সিলিন্ডারগুলো ফেরত  নিয়ে যেতে পারবে। চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে স্বাস্থ্য কর্মীদের মাধ্যমে সমগ্র বাংলাদেশে পরিবার পরিকল্পনা, ম্যালেরিয়া, পোলিও ও টীকাদান কর্মসূচি যে পন্থায় সফল ভাবে বাস্তবায়ন করা গেছে ঠিক একই পদ্ধতিতে মাঠ পর্যায়ে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে করোনার দূর্যোগেও সফল হওয়া যাবে।

ডাঃ মোঃ হাসান ইমাম 
এমডি (মেডিসিন), নিউদিল্লী, স্পেশাল ট্রেইনিং ইন টিএম (চীন, থাইল্যান্ড, কোরিয়া)
মেডিসিন বিশেষজ্ঞ (এএমসি)
০১৭১১৩১০৬১৩

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: